Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

” শুধু রুটি নয় পানীয় জলের ব্যবস্থা এবং রমজান উপলক্ষে ইফতারের আয়োজনেও রুটি ব্যাংক।”

আমিরুল ইসলাম,এডিএইচ নিউজ, হরিশ্চন্দ্রপুর, মালদাঃ মালদা জেলার হরিশ্চন্দ্রপুরের কিছু যুবক অনুভব করতে পেরেছিল নিঃস্ব, অসহায়, ভবঘুরে ও ভিক্ষাবৃত্তি করা লোকেদের ক্ষুধার যন্ত্রণা। তারপরেই সকলের সহযোগিতায় ও নিজেদের উদ্যম প্রচেষ্টায় দু’মুঠো খাবার তুলে দিয়ে ক্ষুধা নিবারণের জন্য তৈরি করেছিল রুটি ব্যাংক। সেই রুটি ব্যাংক আজ ধীরে ধীরে এগিয়ে চলেছে আপন গতিতে। দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে রুটি ব্যাংকে খাবার খেতে আসা লোকের সংখ্যা। সাথে বেড়েছে রুটি ব্যাংকের সদস্য সংখ্যাও।

হরিশ্চন্দ্রপুর এলাকার মানুষ তাদের এই মহৎ উদ্দেশ্যকে সাধুবাদ জানিয়েছে। অনেকেই আবার অর্থ কিংবা খাবার সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করে এই মহৎ কাজে অংশগ্রহণ করতে এগিয়ে এসেছে।
হরিশ্চন্দ্রপুরের বাসিন্দা বিশিষ্ট সমাজসেবী সজন আগরওয়ালা ও হরিশ্চন্দ্রপুর থানার বর্তমান আইসি সঞ্জয় দাস মহাশয় ও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

রূটি ব্যাংকের মুল উদ্যোক্তা তথা কর্ণধার তনুজ জৈন জানায় যে, গরিব লোকদের মুখে অন্ন তুলে দেওয়ার যেদিন স্বপ্ন দেখেছিলাম, সেদিন ভাবছিলাম হয়তো সেটা সম্ভব হবে কিনা। কিন্তু আজ সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত করতে পেরে আমি ভীষণ খুশি হয়েছি। আমার প্রচেষ্টা ও কিছু বন্ধুদের সহযোগিতা এবং হরিশ্চন্দ্রপুরের মানুষের আশীর্বাদ আমাকে সফল করেছে।

বর্তমানে রুটি ব্যাংক শুধুই রুটি ও তরকারি নয় পথচলা মানুষের কথা ভেবে তৃষ্ণা নিবারণের জন্য হরিশ্চন্দ্রপুরের বিভিন্ন জায়গায় পানীয় জলের ব্যবস্থা করেছে।

বিশেষ করে হসপিটাল মোড়,কেনিয়া মোড়,সিনেমা হল সংলগ্ন,রামবিধু মোড়, লাইব্রেরী মোড়,স্টেট ব্যাংক সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড,ব্লক ১-২, শহীদ মোড়, থানা মোড়, তেঁতুল বাড়ী,গড়গড়ি, স্টেশন মোড় প্রভৃতি স্থানে পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হয়েছে রুটি ব্যাংকের পক্ষ থেকে।
অনেকেরই পথ চলতে চলতে এই তীব্র গরমে মাথা ঘুরে যায়, বিশেষ করে সেই সময় জল পেতে অসুবিধা হয়।সে ক্ষেত্রে পথ চলতে গিয়ে মাঝে মাঝে পানীয় জলের ব্যবস্থা পেয়ে সত্যিই খুব আনন্দিত এলাকার সাধারণ মানুষ।পাশাপাশি ছোট ছোট স্কুল পড়ুয়ারাও যাওয়া আসার সময় জল খেতে পেয়ে ভীষণ খুশি।

এছাড়াও রুটি ব্যাংকের পক্ষ থেকে টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে না পারা রোগীর চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দেওয়া, পথ ভুলে যাওয়া বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে তার বাড়ি পৌঁছে দেওয়া প্রভৃতিও করা হয় রুটি ব্যাংকের মাধ্যমে। মাঝে মধ্যেই রক্তদান শিবির এবং বিনামূল্যে চক্ষু ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা শিবিরের আয়োজন করা হয়ে থাকে রুটি ব্যাংকের পক্ষ থেকে।

বর্তমানে মুসলিম সম্প্রদায়ের রমজান মাস চলছে। একদিকে এই তীব্র গরম উপেক্ষা করে সারাদিন এক ফোটা জল না খেয়ে কষ্ট করে যারা রোজা রাখছে তাদের দিকে লক্ষ করে গতকাল মঙ্গলবার ইফতারের ও আয়োজন করা হয়েছে রুটি ব্যাংকের পক্ষ থেকে।

অন্যদিকে সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সংহতি, সম্প্রীতি ও শান্তি বজায় রাখতে এবং রুটি ব্যাংকের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে এই ইফতারের আয়োজন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!